Translate

" তৃপ্তি অনেক সুখে আছে "






অন্য চার পাঁচটা মেয়ের মত তৃপ্তিরও সপ্ন যে তার ভালোবাসার মানুষটি হবে তার জীবনসঙ্গী তৃপ্তি একটি রক্ষণশীল মুসলিম পরিবারের মেয়ে তৃপ্তি কখনো কোন ছেলের সাথে বন্ধুত্ব দূরে থাক কথা বলারও চিন্তা করেনি কিন্তু তার জীবনটা হঠাৎ যেন এলোমেলো হয়ে গেল

ভার্সিটির ১ম দিন, এনাম স্যার পাঁচ জনের গ্রুপ করে দিল সবাইকে সেখানেই তৃপ্তির পরিচয় রুদ্রর সাথে অল্প কয়েকদিনে তৃপ্তি আর রুদ্র খুব ভাল বন্ধু হয়ে যায়, আর দেখতে দেখতে সে ভাল বন্ধু খুব কাছের মানুষে পরিণত হয় একদিন ক্লাস চলাকালীন সময়ে হুট করে রুদ্র তৃপ্তিকে তার মনে তৃপ্তির জন্য লুকিয়ে থাকা ভালোবাসার কথা বলে তৃপ্তিও রুদ্রকে তার মনের কথা বলে তখন থেকে দুজনের ভালোবাসার অধ্যায় শুরু

কথায় আছে কারো কারো কপালে নাকি সুখ সয় না তৃপ্তিও হয়ত তাদেরই একজন ভালই চলছিল তাদের কিন্তু কোথা হতে তৃপ্তির ফুপি তৃপ্তির জন্য বিয়ের সম্বন্ধ নিয়ে আসে তৃপ্তি একথা রুদ্রকে জানালে রুদ্র বলে এটা তৃপ্তির ভালোবাসার পরীক্ষা... তৃপ্তি যদি সত্যি রুদ্রকে ভালোবাসে তবে সে কিছুতেই বিয়ে বসবে না সেদিনই তৃপ্তি তার বাসায় তার আর রুদ্রর কথা জানায় আর তার পরিবারকে বলে সে রুদ্র ছাড়া আর কাউকে বিয়ে করবে না তৃপ্তির বাবা ছিলেন দুর্বল চিত্তের মানুষ সে তার সবচেয়ে আদরের মেয়ের এমন ব্যবহার সহ্য করতে পারেন না আর অসুস্থ হয়ে পরেন তৃপ্তি তার বাবার এই অবস্থার জন্য নিজেকে অপরাধী মনে করে সে রুদ্রর সাথে কথা বলার চেষ্টা
করে কিন্তু সেদিন থেকে ওর বাসা থেকে বের হওয়া আর ফোন ব্যবহার বন্ধ করে দেয়া হয় রুদ্রও তৃপ্তির সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে কিন্তু যোগাযোগ করতে পারে না এদিকে তৃপ্তির বাবার শরীর অনেক খারাপ, ডাক্তার তাকে সকল প্রকার টেনশনমুক্ত রাখতে বলেছেন এবং তার কথার অমত না করার পরামর্শ দিয়েছেন তৃপ্তির এখন একটাই উপায় হয় সে তার বাবাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিবে না হয় রুদ্রকে ভুলে যাবে

আজ তৃপ্তির ৩য় বিবাহবার্ষিকী সে সেদিন তার বাবার দিকে তাকিয়ে নিজের ভালোবাসার বিসর্জন দিয়েছিলো আজ সে একজন সফল মা এবং গৃহিণী কিন্তু স্ত্রী ও প্রেমিকা হিসিবে অসফল সে তার স্বামীকে মন দিয়ে ভালবাসতে পারে না স্বামীকে দেখলেই তার রুদ্রর কথা মনে পরে সে আজও রুদ্রকে ভুলতে পারেনি, এখনও সে রুদ্রকে অনেক ভালবাসে এখন সে তার জীবনের শেষ মুহূর্তের জন্য অপেক্ষা করে, যেদিন সে তার এই অভিশপ্ত জীবন হতে মুক্তি পাবে

আর রুদ্র রুদ্র ভাল আছে সে এখন কোন মেয়েকেই বিশ্বাস করে না তার মতে মেয়েরা হল বিশ্বাসঘাতক আর লোভী রুদ্রও আজও জানে না কোন অবস্থার মধ্য দিয়ে তৃপ্তি বিয়ের জন্য হ্যাঁ করেছে যা জানে তা হল আজ তৃপ্তির অনেক বড়লোক স্বামী আছে আর তৃপ্তি অনেক সুখে আছে


0 comments:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

পোষ্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।আপনি চাইলে পোষ্টটি সম্পর্কে একটি মন্তব্য করতে পারেন।